মঙ্গলবার, ১৬ Jul ২০২৪, ০২:২৫ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
নরসিংদীতে ভূমি অধিগ্রহণের ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের মাঝে চেক বিতরণ নরসিংদী বেলাবতে ব্যবসায়ীর বাড়িতে হামলা,প্রায় ২০ লক্ষ টাকার ক্ষতি শিবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স-এর. পক্ষ থেকে এমপিকে উষ্ণ সংবর্ধনা পলাশে তিন বছরের শিশু মাইশার লাস উদ্ধার আটক ৩ নরসিংদী জেলা শিবপুর উপজেলায় সরকারি ইটের সলিং রাস্তা উঠিয়ে ফেলেছে দুষ্কৃতকারীরা বীর মুক্তিযোদ্ধা সাবেক সংসদ সদস্য অকুতোভয় রাজনীতিক প্রখ্যাত সাংবাদিক কামাল হায়দার স্মরণে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত এশাআতে দ্বীন নু্রানী তালিমূল কোরআন ক্যাডেট মাদ্রাসার কৃতি শিক্ষার্থীদের মাঝে পু্রুষ্কার বিতরণ লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলাও করতে হবে……… আলহাজ্ব মোঃ সামসুল ইসলাম মোল্লা নরসিংদীর শিবপুর সাব রেজিস্ট্রার নেই ..হতাশায় গ্রাহক চিত্রশিল্পী আল-আমীনের আঁকা ছবি গুলো সংরক্ষণের প্রয়োজন
পলাশে জোরপূর্বক মাটি বিক্রি কৃষিজমি পুকুরে পরিণত

পলাশে জোরপূর্বক মাটি বিক্রি কৃষিজমি পুকুরে পরিণত

নিজস্ব প্রতিনিধি  :   নরসিংদীর পলাশ উপজেলার ডাঙ্গা ইউনিয়নে নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে অবাধে ইটভাটায় বিক্রি করা হচ্ছে কৃষিজমির মাটি। এতে পরিবেশ দূষণ ও জমির উর্বরতা হারানোসহ পুকুরে পরিণত হচ্ছে ফসলী জমি। কৃষকদের অভিযোগ, ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের অঙ্গ সংগঠন ছাত্রলীগের স্থানীয় নেতাকর্মীরা জোরপূর্বক মাটি কেটে বিভিন্ন ইটভাটায় বিক্রি করছেন। উপজেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভায় এ বিষয়টি উত্থাপন করেও কোনো সুফল পাওয়া যাচ্ছে না বলে দাবি স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সাবের উল হাই এর। ভুক্তভোগী কয়েকজন কৃষকের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ডাঙ্গা ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের কৃষকদের নামমাত্র মূল্য দিয়ে মাটি কেটে নেওয়া হচ্ছে। এতে রাজি না হলে কৃষকদের ভয়ভীতি ও হুমকি দিয়ে জমির মাটি কেটে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এসব মাটি সরাসরি চলে যাচ্ছে স্থানীয় বিভিন্ন ইটভাটায়। নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে কৃষিজমি কেটে পুকুরে পরিণত করা হলেও ক্ষমতাসীন দলের হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিচ্ছে না স্থানীয় প্রশাসন। কৃষকদের দাবি এসব মাটিসন্ত্রাস বন্ধে উপজেলা প্রশাসন বরাবর লিখিত অভিযোগ দেওয়ার পরও কার্যকর কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি। ফলে ফসলি জমি ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়াসহ তিনফসলি জমিকেও পুকুরে পরিণত করছে মাটিসন্ত্রাসীরা। অন্যদিকে অব্যাহত মাটিকাটা ও মাটি অন্যত্র নেওয়ার কারণে ব্যবহৃত ট্রলির বেপরোয়া চলাচলে গ্রামীণ সড়কগুলো ধুলাবালি ও কাদামাটিতে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এতে করে চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন এলাকার মানুষ। তাছাড়া মারাত্মকভাবে পরিবেশ দূষণ হচ্ছে। সরেজমিন ডাঙ্গা ইউনিয়নের জয়নগর গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, ডাঙ্গা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি নাদিম ও তার বড় ভাই শফিকুল ইসলাম হিরণ ও আরিফ মিয়ার নেতৃত্বে কৃষিজমির মাটি এক্সাভেটর (ভেকুমেশিন) বসিয়ে ২৫ থেকে ৩০ ফুট গর্ত করে কেটে নেওয়া হচ্ছে বিভিন্ন ইটভাটায়। কৃষকদের অভিযোগ রয়েছে এসব মাটি জোরপূর্বক কেটে নিয়ে যাচ্ছে তারা। বোরহান মিয়া নামের কৃষক বলেন, জয়নগর গ্রামে তার প্রায় ৪ বিঘা তিনফসলি কৃষিজমির মাটি জোরপূর্বক কেটে নিয়ে যাচ্ছে ছাত্রলীগ নেতা নাদিম, তার ভাই শফিকুল ইসলাম হিরণ ও আরিফ মিয়া। তারা স্থানীয়ভাবে প্রভাবশালী হওয়ায় একাধিকবার বাধা দিলেও কোনো লাভ হয়নি। এমনকি উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর তিনি লিখিত অভিযোগ দিয়েও কোনো সুফল পাওয়া যায়নি। উপজেলা প্রশাসন থেকে এখনও পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি। এতে মাটিসন্ত্রাসীরা আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। একই অভিযোগ করেন শরিফ মিয়া নামের অপর এক কৃষক। তিনি বলেন, তারা শুধু কৃষিজমির মাটিই কেটে নিয়ে যাচ্ছে এমন নয়। তারা আমার দাদি মসজিদের জন্য যেই জমি দান করে গেছেন, ওই জমির মাটিও কেটে নিয়ে যাচ্ছে নাদিম, হিরণ ও আরিফসহ মাটিসন্ত্রাসরা। অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা নাদিম মুঠোফোনে বলেন, এখান থেকে কোনো কৃষকের জমির মাটি কাটা হচ্ছে না। এখান থেকে যেসব মাটি কাটা হচ্ছে ওইসব জমি নিজেদের বলে দাবি করেন ছাত্রলীগের নেতা নাদিম। জানতে চাইলে ডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সাবের উল হাই বলেন, ডাঙ্গা ইউনিয়নে ব্যাঙের ছাতার মতো গড়ে উঠা অবৈধ ইটভাটার কারণেই ফসলি জমির পাশাপাশি রাস্তাঘাটগুলোও ব্যাপকভাবে ক্ষতির মুখে পড়েছে। কৃষকরাও তাদের জমির মাটি বিক্রি করে দিচ্ছেন। সরকারের গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষার্থে ও ডাঙ্গা ইউনিয়নের পরিবেশ রক্ষার্থে এসব বিষয়ে মাসিক আইনশৃঙ্খলা মিটিংয়ে বলেও কোনো সুফল পাওয়া যাচ্ছে না। কৃষকদের জমির মাটি জোরপূর্বক কেটে নেওয়ার বিষয়টি অবগত নন বলেও জানান এই চেয়ারম্যান।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ




raytahost-demo
© All rights reserved © 2020
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD